খবর

    Category: পরিবেশ

Viewing posts for the category পরিবেশ

প্রসঙ্গঃ কার্ল মার্কস

 প্রসঙ্গঃ কার্ল মার্কস… ১. এখন এই পরিবর্তিত পরিস্থিতে মার্কস কত টুকু প্রাসংগীক ?

Read More →

বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল জলবায়ু পরিবর্তন জনিত ক্ষতির সম্মোখিন

বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল জলবায়ু পরিবর্তন জনিত ক্ষতির সম্মোখিন (Bangladesh ASF) ক্ষুধা, দারিদ্র, ও অনাহারে বিশ্বের বেশীর ভাগ মানুষ আক্রান্ত। এবার ভারত, বাংলাদেশ ও নেপালের কৃষকেরা নানা সমস্যায় নিপতিত হয়েছেন। কেবল ভারতের অন্দ্র প্রদেশের প্রায় ৭০ মিলিয়ন কৃষক তাদের জীবন যাত্রা নির্বাহ করে কৃষির উপর নির্ভর করে। খারাপ আবহাওয়ার জন্য মিলিয়ন মিলিয়ন কৃষক এখন হুমকীর মুখোমুখি। একেই ভাবে নেপালের ৩.৪ মিলিয়ন কৃষক সহ বাংলাদেশের কোটি কোটি কৃষক জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে খাদ্যের জন্য অন্য দেশের উপর নির্ভর করতে হবে।

Read More →

মাওবাদিদের মধ্যে যারা পল পট এবং খেমারুজদের সমর্থক তাদের প্রতি আমাদের বক্তব্য

মাওবাদিদের মধ্যে যারা পল পট এবং খেমারুজদের সমর্থক তাদের প্রতি আমাদের বক্তব্য ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মাওবাদি) যারা গনতন্ত্র, প্রগতিশীলতা জন্য, এবং সাম্রাজ্যবাদের বিরদ্বে নিজ দেশের প্রশাসকদেরকে  পরাজিত করার জন্য  লড়াই করছেন। তারা দুনিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম জন সঙ্খ্যা অধ্যুষিত দেশটির মানুষের দারিদ্রতা দূরী করনের জন্য ও সংগ্রাম করছে। তাদের আন্দোলন ও সংগ্রাম আমাদের জন্য সমর্থন দাবি রাখে। কিন্তু সেই সংগঠন আজো মতান্দ্বতার উর্দ্বে উঠতে পারেনি। তাদের মতান্দ্বতার মধ্যে উল্লেখ যোগ্য দিকটি হলো খেমারুজদের প্রতি তাদের অব্যাহত সমর্থন। তারা এখন ও মার্কসবাদ বনাম সংশোধন দুই লাইন অনুসরন করছেন। ভারতীয় কমিউনিস্ট মাওবাদিদের মতে কম্পোচিয়ায় এখনো মাওবাদি ধারা ক্ষমতাসীন আছেন। ২০০২ সালে ভারতীয় কমিউনিস্ট পার্টি মাওবাদিরা তাদের ক্যাডারদের জন্য যে দলিল প্রকাশ করে তাতে তারা বলেনঃ

Read More →

ফিল্ম রিভিউঃ স্নোপারচার

ফিল্ম রিভিউঃ “স্নোপারচার” (ব্যাং জন – হো,২০১৩)

Read More →

ফিল্ম রিভিউঃ ডিস্ট্রিক্ট-৯,

ফিল্ম রিভিউঃ ডিস্ট্রিক্ট-৯, ডিস্ট্রিক্ট ৯ হলো একটি কৃত্তিম প্রামান্য চিত্র  এটা এয়লিয়েনের একটি জাহাজের আগমনকে কেন্দ্র করে নির্মিত, যা প্রায় এক দশক আগে ফিরে গেছে। ফিল্মটি শুরু হয়েছে সাউথ আফ্রিকার জোহান্সবার্গের উপর দিয়ে উড়ে আসা একটি এলিয়েন জাহাজ দিয়ে। যখন মানুষ সেই জাহাজটিতে উঠল তখন দেখতে পেল জাহাজে জীবন্ত এলিয়েনরা বিক্ষিপ্ত ভাবে পড়ে আছে, যারা জাহাজটি পরিচালনা করতে জানে না । তখন লোকেরা অনুমান করল যে হয়ত এলিয়েনদের মধ্যে যারা জাহাজ চালাতে পারতেন তারা কোন অজ্ঞাত রোগে মারা গেছে।  কেবল “সাহায্যকারী” এলিয়েনরা বেচে আছে। জোহান্সবার্গের ডিস্ট্রিক্ট ৯ এ জাহাজে পাওয়া এলিয়েনদেরকে কেবল “এলিয়েনদের জন্য” নির্মিত একটি তাবুতে স্থানান্তর করা হলো।  এই তাবুটি ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব দেয়া হলো একটি বহুজাতিক কোম্পানিকে (বকো), এই কোম্পানী প্রতিরক্ষা ও এলিয়েন বিষয়ে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন একটি প্রতিস্টান। মানব কতৃক এলিয়েনদের সাথে বিরক্তিকর আচরন যেন না হয় সেই জন্য (বকো) তাবুটিকে নির্জন স্থানে স্থানান্তর করে ফেলে। স্থানান্তর কালিন সময়ে একজন প্রশাসক উইকুজ ভ্যান দার ম্যারু (Sharlto Copley) মানব-এলিয়েন সমন্বয়ে এক প্রকার হাইব্রিড প্রজাতির উত্পত্তি করে ফেলেন। উইকুজ এলিয়েনদের নিয়ে কাজ করতে গিয়ে তাদের নিকট থেকে ব্যাপক অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। উইকুজ (বকো) ও নাইজেরিয়ান চক্রের হাতে শিকার হয়ে যান। কারন তাদের উদ্দেশ্য ছিলো এলিয়েনদের শক্তি কাজে লাগিয়ে বিশেষ করে মানব যে সকল অস্ত্র ব্যবহার করতে পারেনা তা এলিয়েনদের মাধ্যমে ব্যবহার আয়ত্বে আনা । অর্থাৎ এলিয়েন প্রযুক্তির ব্যবহার কাজে লাগানো। উইকুজকে জোর করে মানব সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ডিস্ট্রক্ট ৯ এ নিয়ে যাওয়া হয়। ঘটনা ক্রমে তিনি ক্রিস্টোফারের সাথে মিলিত হন, ক্রিস্টোফার হলেন সেই বুদ্বিমান এলিয়েন যার ইঞ্জিন বিষয়ক জ্ঞান আছে যা দিয়ে তিনি তাদের জাহাজটিকে পুন নির্মান ও উড়াতে সক্ষম । ক্রিস্টোফার উইকুজ কে প্রস্তাব দিলেন যে, তাকে মানুষের সমাজে ফিরে যেতে সাহায্য করা হবে, তবে এর জন্য আরো তিন বছর সময় লাগবে, যদি উইকুজ তাদেরকে তাদের (বকো) কর্তৃক দখল কৃত প্রযুক্তি পুনরুদ্বারে সহযোগীতা করেন । কেন না ক্রিস্টোফারের দরকার হলো তাদের নিজস্ব প্রযুক্তি পুনরুদ্বের করে তাদের জাহাজটিকে পুন নির্মান ও উড়িয়ে নিজ আবাস ভূমে ফিরে যাওয়া ও অন্যান্য এলিয়েনদেরকে পুনরুদ্বার করে স্ব স্ব স্থানে নিয়ে যাওয়া। জাতীয় নিপিড়ন ও বর্নবাদ

Read More →